প্রকাশক, লেখক, পরিচালক বাংলাদেশের বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব চন্দন চৌধুরীর অণুগল্প সম্পর্কে যা বললেন কবি তৈমুর খান।

 
 
সারস্বত জীবনবোধের গল্প 
 
 
 
তৈমুর খান 
চন্দন চৌধুরীর সাম্প্রতিক অণুগল্পগুলি শানিত রূপকের কুঠার । ব্যক্তি নয়, চরিত্র নয়, সমূহ জীবনবেদের প্রকীর্ণ সমষ্টি । চৈতন্যবোধে, বিবেকবোধে আত্মজাগরণের স্ফুরণ হয়ে উঠেছে। আমাদের জীবনযাপনে যে শূন্যতা, মূর্খতা, বিহ্বলতা এবং বালকত্ব বিরাজ করে তা আবহমান মানবসঞ্চারেরই অংশ। সেইসবকেই চন্দন চৌধুরী রূপকের আড়ালে তুলে আনেন। প্রবৃত্তির অনুজ্ঞাগুলির সচকিত প্রকাশ ঘটান। মেদ বর্জিত আলোকসাম্যে মেটাফোররের নিরাবয়ব ধারণায় সেগুলি প্রজ্ঞাপিত করে তোলেন। কতগুলি গল্পের বিষয়-আশয় উল্লেখ করলে বোঝা যাবে কতখানি তীক্ষ্ণ ও তির্যক উপমানগুলি।
১.যে মানুষের কাছে থাকে সে পাগল। অর্থাৎ মানুষ+পাগল =মানুষ।
যে মানুষ থেকে দূরে যায় সে মাতাল। অর্থাৎ মানুষ—মাতাল =অমানুষ।
                                                           (মানুষ, অমানুষ)
২. বসন্ত তো ঘর-বাঁধার ৠতু। সন্তান-সন্ততি । সংসার । ভালবাসা। নোংরা খায় তবু কাক এটা করে। নিজের জন্য তার বড়াইও নেই।
     কিন্তু কোকিল বসন্তের প্রতীক হতে চায়। নিজের বাসাই নেই। শুধু মূল্যহীন এক অহংকার শুধু।
                                                       ( কাক ও কোকিল)
 
৩. সংসারটাই একটা মঞ্চ। অভিনয় ক্ষেত্র। প্রতিটি মানুষই কোনো না কোনোভাবে অভিনয় করে চলেছে। সিনেমার অভিনেতারা শ্রেষ্ঠত্বের পুরস্কার পায় ঠিকই, কিন্তু সংসারে অভিনয়ের পুরস্কার পায় না। দুই বন্ধুর সংলাপে সম্বিৎ ফিরে আসে।
                                                        (সেরা অভিনেতা) 
৪.  সুন্দরী মেয়ে যতই সুন্দরী হোক, তার ছায়াটি অন্যকারও থেকে আলাদা নয়। ছায়াতে সবাই এক। এটা বুঝতে পেরেই মেয়েটির আত্মজ্ঞান হল।
                                                               (ছায়াসুন্দরী)
৫.  পাগলের কাণ্ডকারখানা দেখতে দেখতে কে বড় পাগল সেটাই ভাবতে লাগল আর একজন। আসলে সবাই-ই পাগল, যার কোনো ছোটোবড়ো নেই। হাততালি দেওয়ার আনন্দ তো পাগলেরই কাজ।
     (বড় পাগল) 
৬. আত্মগ্লানির কথা তো কারও সামনে বলতেই হয়। নিজের অভিশাপ নিজে নিজে উচ্চারণ করা যায় না। গাছের কাছে, অন্ধকারে, ফাঁকা মাঠের বাতাসে অভিশাপ দিতে গিয়েও থেমে যেতে হল। কেউ কি বিরক্ত হচ্ছে? প্রশ্নটা বিবেকের কাছে।দরবেশ অভিশপ্ত লোকটিকে এসবই ভাবতে বলেছে। অন্যকে নয়, নিজেকেই মানুষ অভিশাপ দিয়ে চলেছে।
   (অভিশাপ) 
৭. মাছের কাঁটা আসলে এক বিবেক। যা খেয়ে শরীরের অস্থি পূর্ণতা পায়। পরোক্ষে বিবেকেরও পুষ্টি লাভ হয়। বিড়ালের সঙ্গে মাছের কাঁটার সংলাপে যে চৈতন্য জাগ্রত করে তাতে অন্যকিছুর প্রতিও সমীহ জাগায়।
               (বিড়াল ও মাছের কাঁটা) 
 
৮.   রোদ ও শিশির এক ধাঁধা। শিশির কখনো সূর্যকে ধারণ করতে পারে না। তার গর্ব অচিরেই শুকিয়ে যায় রোদের কাছে।
                                                         (রোদ ও শিশির) 
৯.   নারীবাদ আসলেই পুরুষবশ্যতায় নিজেকে যুক্ত করারই নাম। পুরুষরা নারীদের কিছুই গ্রহণ করে না। তারপরও নারীবাদ? এ এক রসিকতা।
                                                                  (নারীবাদ) 
১০. অভিজ্ঞতাও জীবনের এক পরিমাপ ও পূর্ণতার রূপ। পাহাড়ের জল ও সমুদ্রের জলের বাষ্প হওয়ার রূপকটি অসাধারণ।
                                                            (অভিজ্ঞতা) 
সমূহ গল্পগুলিতেই সারস্বত জীবনবোধের বাতাবরণ থেকে এক বিচ্ছুরিত অভিজ্ঞতার পর্যায়টি লক্ষণীয়। মনস্তাত্ত্বিক বিন্যাস থেকে রূপকাত্মক সংকেতিকতায় মানবীয় আচারই প্রতিফলিত হয়েছে। এক নিঃশ্বাসে পাঠের পরও অনিঃশেষ ভাবনার মুহূর্তগুলি পাঠক মনে জমাট বাঁধতে থাকে। অনপনেয় হয়ে ওঠে এর সুদূর প্রসারী অভিঘাতও।
      খুব কম বয়সী আমেরিকান বিখ্যাত নায়িকা এবং গায়িকা আমান্ডলা স্টেনবার্গও(জন্ম ১৯৯৮)একথা বিশ্বাস করেন :
There’s so much power in allegory, to form ideas and learn lessons that you can actually take and apply to real life. I think that’s why I originally really loved fantasy and reading.
(Amandla Stenberg)
অর্থাৎ রূপকথার মধ্যে অনেক শক্তি রয়েছে, ধারণা তৈরি করতে এবং এমন পাঠ শিখতে যা আপনি বাস্তবে বাস্তব জীবনে নিতে এবং প্রয়োগ করতে পারেন। আমি মনে করি সে কারণেই আমি মূলত কল্পনা এবং পড়া পছন্দ করি।
অণুগল্পগুলি এই দ্যোতনায় বাহ্যিক আড়ষ্টতা ভেঙে অসামান্য আবেদন নিয়ে উপস্থিত হয়েছে। দার্শনিক চেতনার সঙ্গে নান্দনিকতার অপূর্ব মেলবন্ধন ঘটেছে। চন্দন চৌধুরী যে একজন দক্ষ জীবনশিল্পী সে সম্পর্কে কোনো সংশয়ই নেই। সংলাপগুলি ঘুরে ঘুরে বাজতে থাকে  “আমরা মানুষ,আমরা মানুষ।” “কেমন আছ কোকিল ভাই?”, “কোনো কিছু নিতে হলে যোগ্যতা লাগে।” “পুড়ে মরবি তুই, দগ্ধ হবি আমৃত্যু।” প্রভৃতি । সহজ ভাষায়, চুম্বকীয় আবেশে গল্পগুলির এক নিবিড় সংশ্লেষ লেখকের মুন্সিয়ানা চিনিয়ে দেয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *