রণেশ রায়ের তিনটি কবিতা

যারা
এ পৃথিবীতে নেমে এসেছে আঁধার
সে আজ চোখে দেখে অন্ধকার
তার হৃদয় গহ্বরে শুধুই ঘৃণা
প্রেম হারিয়েছে তার সত্ত্বা
যাদের নেই মানবতা বোধ
আত্মস্বার্থই যাদের সাধনা
ধর্ম নয় বক ধার্মিক যারা
ঠগ লম্পট ধুরন্দর তারা
তাদের পরামর্শ ছাড়া চলে না এ জগৎ
তারাই দেশের কর্ম কর্তা।
আর যারা আজও আঁকড়ে ধরে সত্য
মাথা নোয়ায় না অন্যায়ের কাছে
জীবন দেয় আদর্শের জন্য
যারা নয় ভীতু কাপুরুষ
যাদের হৃদয় এখনো কাঁদে
তাদের পেছনে রাজার বাহিনী
শ্বাপদ খুঁজে ফেরে তাদের
রোজ্যু তৈরি তাদের দেবে ফাঁসি।
ভাগাভাগি এ আকাশ
এ আকাশ ভাগাভাগি, তুমি আর আমি
অর্ধেক আমি অর্ধেক তুমি
তোমার পৌরুষ আমার নারীত্ব
দুজনের দুটি সত্তা পরস্পর আতিথ্য
একই বৃন্তে দুটি ফুল
কর্তব্য অধিকার ভাগাভাগি দুজনায়
বিশাল এ কর্মজীবনে
ভাগ করে নিই যা কিছু দায়
মেঘে মেঘে ঘর্ষণ বর্ষায় বৃষ্টি
আমাদের মিলন প্রাঙ্গণে
এ জগতের যা কিছু সৃষ্টি
দিনের আলোয় রাতের জ্যোৎস্নায়
তোমার আমার চেতনার মোহনায়
সুখ দুঃখ আনন্দ নিরানন্দ
ওই আকাশে দুজনকে মেলায়
তুমি যখন শ্রান্ত ক্লান্ত জীবনের মধুবনে
আমি থাকি অপেক্ষায়
তুমি মেল এসে আমার বাসর শয্যায়।


আমার ভারত
তুমি কি চেনো শাসক
আমার এ ভারত
একতারায় বাঁধা সেতারের সুর
ধর্ম বর্ণের মোহনায়
মেলে এসে জীবন আঙিনায়
এ নয় ভারত তোমার,
তোমার ভারতে বিভেদের কারবার
সে ভারত আমায় দংশায়
আমার ভারতে ঐক্যের মূর্ছনা
সাম্যের বাণী সেখানে শোনা যায়
শয়নে স্বপনে আমার সে ভারত
আক্রান্ত আজ তোমার ছলনায়
আমার ভারতে প্রাণের স্পন্দন শোনা যায়
মিটিংএ মিছিলে শ্লোগানে শ্লোগানে
ছাত্র ছাত্রী কিশোর কিশোরীর স্পর্ধায়
তোমার ভারত আমার ভারত
আজ মুখোমুখি যুদ্ধের আঙিনায়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *