সবিতা

সত্যেন্দ্রনাথ পাইন

কী অপূর্ব তোমার নাম যে আমায় বলে
হে প্রিয় হে সুরের তরণী
উৎকণ্ঠায় নয় তরঙ্গ হিল্লোলে বিস্ফারিত
মুগ্ধ চোখ মুগ্ধ তব ছটায।
ঘুমের মাঝে তোমার চুম্বন সারা দেহে জাগায়
দুরাশা স্বপনের মায়া।

তোমার লীলা পৃথিবী সৃষ্টির আদিমতায়
জড়ের ভূমিকায় আস্তরণ খুলে
এনেছে শান্তি, এনেছে শ্যামল সবুজ
তোমার প্রেমে শরীরের বিশৃঙ্খলতা
গেছে ঘুচে।
আমি আনন্দিত কয়েদি ফেরতের ফাগুনে
শত শত ভাঙা আঁকা বাঁকা পথ
ঘুরে গেছে দিগন্তে অন্ধ ঈর্ষায়।

চুপ করে আছি আজও
সমাজ বিধির ভয়ে
এর চেয়ে অনেক ভালো চাঁদের স্নিগ্ধ জোছনা
যে দেয় অনন্ত ভাবনা হলুদ বনের
মন্দিরের চূড়ায়।

তোমার প্রেম যেন অসীম কল্পনার চাউনি
দিয়েছে যত
তারও বেশি মনের অস্থিরতা এসেছে
না চেনার নমস্কারে।

তুমি কি নারী নাকি পরিচয়ের দেবতা
তুমি কি বাসি না ঘোমটা খসা
লাল আগুন! ?

ওগো তুমি জানো না আমি কত
ভালোবাসি তোমায়,
তোমার প্রেমকে
দূরত্ব রেখে কত আবছায়া গল্প রচনা করি।

একদিন আলো হয়ে দেখিয়েছো পথ
ভাবিনি সম্ভব হবে পাশে থাকার
তোমার শাড়ির আঁচল ধুলোয় লুটিয়ে
আঁধারে গান শোনায়।

ইন্দ্রাণীর নিভৃতচারী তুমি
তুমি অবগুন্ঠিত থেকো না।
ঋতুর মতো আবর্তিত হয়ে
আমার জীবনের বৈশিষ্ট্য সকল
যজ্ঞে প্রদান করো।

তুমি এক অদ্বিতীয় জ্যোতি
তুমি আদি, তুমি স্বতন্ত্র
পাতার আড়ালেও আলো
তোমার সাতরঙা মিলিয়ে দেয়
আমার ক্ষুদ্র পরিচয়।

চূড়ায় চূড়ায় নেশা লাগলে
অনাসক্তি জাগিয়ে
আমাকে টেনে নাও তোমার
বুকের মাঝে।

আকাশের তারারাও ঈর্ষা ক’রে আমাদের
ঘরের ভেতরে ঢুকে আসতে চায়।

তুমি আমার প্রেয়সী নাকি দেবী
বর্বরতার পাট চুকিয়ে
জানাও বিধ্বংসী নাটের গুরু।

তোমার ভালোবাসাকে
জানাই কোটি কোটি
প্রণাম আমার।

অকারণে আমায় ছেড়ে যেও না
জেনো গলির মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকা
কেবল দখিনা হাওয়া।

অবাক বিস্ময়ে তোমাকে দেখি
আর
চোখ খুলে পড়ি তোমার বানী
সন্ধ্যাবেলায় ভয়ে অন্ধকারে
তেলের প্রদীপে প্রদান করি
জন্ম মৃত্যুর তেল।
তুমি আশ্বস্ত করো আমায়
পিছন পিছন ছুটে যখন
বুঝি আমি কত্ত নাবালক
জন্মদিনের পার্টিতে
আমি সংসারের মর্ম বুঝেও
বুঝি না।

আমি প্রেমিক কৃষ্ণ হতে পারিনি তবুও
আমি নির্ভেজাল নই
তুমি আপন স্বরূপে আপন অস্তিত্বে
ঘুম ভাঙা প্রভাতের আলো।
তুমি সূর্য তুমি সবিতা।

উপভোগ করি কম্পিত অধোরে
বিদ্যূতের
প্রচন্ডতা,
আগ্রহের মহান জগৎ।।

সত্যেন্দ্রনাথ পাইন।
৯চৈত্র ১৪২৭
সময়- দুপুর ১২টা।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *