প্রবীর রায়চৌধুরীর অসহায়তা কবিতার সৌজন্যে

sahityalok.com


অসহায়তা ১৬-০১-২০২০
প্রবীর কুমার চৌধুরীপ


দক্ষিনা বাতাস ঝরায় পাতা
মন যমুনার তীরে,
যায় বয়ে যায় লগন আমার
পঞ্জর ভাঙা নীড়ে।


ভোরগুলো মোর বিষণ্ণ বড়
বিবর্ণ আর জড়োসড়ো 
বর্ণচোরা ,বোবা সময়-
তমস মাঝে একলা বড়।


আঁধার ঘন দীপ নেভানো রাতে
এ দ্রোহকালে কেউ নেই সাথে,
আমি ঘুরি ,অপাংতেও  জারিজুড়ি,
পাগল বলে,কেউ বলে হাড় হাভাতে।


জেগে আছি যেন মহাকারাগারে
বেঁচে আছি নিদারুণ অনাহারে
আমার দেহসুধা পান করে রাত ভোমরা
নির্বিচারে ছিনিমিনি খেলে অন্ধকারে।



সংরক্ষিত
গড়িয়া,কলকাতা।
সুন্দর উপস্থাপন। কাব্যগুনে ভরপুর। কিন্তু এত নিরাশবাদ কেন। আশার বার্তা পাঠান।সৌজন্যে নিচের তিনটে কবিতা।


প্রবীর রায়চৌধুরীর অসহায়তা কবিতার সৌজন্যে



আগমন
রণেশ রায়
১৬/০১/২০২০


শীতের ঠান্ডায় ঝরে পাতা
ধূসর মাঠের পরে
 বয়ে যায় কাল আমার
আসবে সে সময় ধরে।


গ্রীষ্মে আমার দহন বড়
আগুন জ্বলে পিঞ্জরে
সে আগুনে জ্বালা জেনো
শান্তি নেই নিজ নীড়ে।


মেঘ ভেঙে বর্ষা নামে
শ্রাবণ রাতের বর্ষায়
চাষির মুখে হাসি ফোটে
পোয়াতি মাটি অপেক্ষায়।


আজের এ মধু রাতে 
বসন্তের রাত শেষে
নতুন ঊষা অপেক্ষায়
সে আসবে এ দেশে।


ভোরের আকাশে রবির উদয়
 ভৈরোর গান গায়
মায়ের গর্ভে নতুনের বার্তা
জীবন স্পন্দন শোনা যায়।




ডেকে ফেরে


বৈশাখী বাতাস তুফান ডাকে
নীল সাগর তীরে
বয়ে চলে জীবন ডিঙা
সাত সমুদ্র পারে।


পূবের সকাল সাগর পারে
ইশারা তার রবিরে
ভোরের আলো ঈশান কোণে
রশ্মি ছড়ায় সাগর তীরে।


সাঁঝের বেলা জ্যোৎস্না রাতে
আশার দীপ জ্বলে ঘরে
নক্ষত্র ডাকে চন্দ্রিমাকে
মুখে সোহাগ ঝরে।


সুখ দুঃখের খেয়া বেয়ে
জীবন জাহাজ বয়ে চলে
কোন অজানা সাগর পারে
ব্যাপারী তার নোঙর ফেলে।


কালের শেষে মহাকালে
বার্তা ভেসে আসে
রাত শেষে ভোর হলে
সূর্য ওঠে আকাশে।


অন্ত শেষে কোন অনন্তে
যাত্রা মোদের অজান পারে
ভোরের সূর্য অস্তাচলে
ডেকে ফেরে চন্দ্রিমারে।



আশার দীপ


বাঁচি আমি আশা ভরে
মন সাগরের তীরে
দিন অন্তে লগন শেষে
ফিরি আশার দীপ ধরে।


ভোরগুলো মোর আশার আলো
আশার দীপ জ্বলে
তমসা ঘন রাত শেষে
হৃদয় দুয়ার খোলে।


আশার ডিঙা বয়ে চলে
অজান পথে ঢেউ ভেঙে
পৌঁছয় সে অজান পারে
ওই পাহাড় তুঙ্গে।


বেঁচে থাকি অনাহারে
অনামিসা রাতে
আশার দীপ হৃদমাঝে
ভোরের আলো সাথে।


আশার দীপ জানায় মোদের
শেষ লড়াই বাকি
লড়তে হয় ঐক্য গড়ে
বিভেদে যেন না ভাঙি।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *